ধুপাগুল রাস্তা নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

বিশেষ প্রতিনিধিঃ
  • Update Time : শনিবার, ১৪ মার্চ, ২০২০
  • ৪৪৬ Time View

চা শ্রমিক ডটকমঃধুপাগুল-সাহেবের বাজার ভাঙ্গা রাস্তা নিয়ে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে মিথ্যা আশ্বাস এবং কাজের কাজ না হওয়ার প্রতিবাদে ৫০০০হাজার যুবক মিলে “কোঁদাল কর্মসূচি” দেয়ার লক্ষে
গত ৭ই মার্চ মতবিনিময় সভার ডাক দেন ধুপাগুল-সাহেবের বাজার রাস্তা সংস্কার বাস্তবায়ন পরিষদের আহবায়ক সাংবাদিক সাইফুল ইসলাম।সভাটি অনুষ্ঠিত হবে ১৩মার্চ শুক্রবার সন্ধায় সাহেবের বাজার মাদরাসার হল রুমে।
কিন্তু মাত্র তিনদিনের ব্যবধানে ১০মার্চ,৩নং খাদিমনগর ইউনিয়ন কর্তৃপক্ষ বিষয়টি আঁচ করতে পেরে ইউনিয়ন পরিষদে এক জরুরী সভা ডেকে ১১মার্চ তড়িগড়ি করে ট্রাক বন্দের সিদ্ধান্ত নেন।এতে রাস্তা সংস্কার আন্দোলনের কর্মীরা মনে করেন,আন্দোলনের আওয়াজকে বরাবরের মতন থামিয়ে দেয়ার জন্য ট্রাক বন্দ করে একটি নতুন কৌশল অবলম্বন করা হচ্ছে।ইউনিয়ন পরিষদের হুট করে নেয়া সিদ্ধান্তে সমালোচনার ঝড় উঠে পুরো ইউনিয়ন জুড়ে।অবশেষে একতরফা সিদ্ধান্ত থেকে বাঁচতে তারা সহযোগী হিসেবে ধুপাগুল স্টোন ক্রাশার মালিক সমিতিকে এড করে পূণরায় ট্রাক চালু করার সিদ্ধান্ত নেন।তবে কাজ শেষ হবার পর এ সিদ্বান্ত চালু হবে বলে জানা যায়।

গতকাল ১৩ই মার্চ ২০২০ইং শুক্রবার হাফিজ জমির উদ্দিনের পরিচালনায় পূর্ব ঘোষিত তারিখ অনুযায়ী স্হানীয় সাহেবের বাজারে সাহেবের বাজার যুব সমাজের উদ্যোগে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সে সময় উপস্থিত সকলের ঐক্য মতের ভিত্তিতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্বান্ত গ্রহণ করা হয়।

মতবিনিময় সভায় নেয়া সিদ্ধান্ত সমূহ:

১/যেহেতু রাস্তা সংস্কার করে দেয়ার আশ্বাসে ইউনিয়ন পরিষদ তড়িগড়ি করে একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে,তাই আপাতত সকল আন্দোলন স্হগিত ঘোষণা করা হল।
কিন্তু বরাবরের মতন যদি যুব সমাজের কন্ঠরোধ করে দেয়ার এটি কোন প্রদক্ষেপ হয় এবং রাস্তার কাজ না হয়।তাহলে পরবর্তীতে প্রতি গ্রাম থেকে ৪০জনের কমিটি করে ৩২টি গ্রামের মানুষকে সাথে নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনের ডাক দেয়া হবে।

২/আমরা কারো ব্যবসার ক্ষতি চাইনা,রাস্তা ভালো হলে ট্রাক চলুক,ব্যবসা চলুক,এতে সাহেবের বাজার এলাকার কোন সমস্যা নাই।কিন্তু মানুষের ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ করে ফিৎনা সৃষ্টি করে রাস্তার কাজ চিরতরে বন্দ করে দেয়ার পায়তারা করা হলে সহ্য করা হবে না।

৩/ শুধু ফেইসবুকে নয় যত দ্রুত সম্ভব
বাস্তবে রাস্তার কাজ শুরু করতে হবে।অপরিকল্পিত ভাবে
কাঁদা মাটি রাস্তায় দিয়ে যেন গর্তের সৃষ্টি না করা হয়।সেজন্য পরিকল্পিত ভাবে রাস্তার কাজ শুরু করতে হবে।
পরিকল্পিত ভাবে ড্রেনেজ ব্যবস্হা করতে হবে,পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্হা করে বর্ষার দিনে ব্যাঘাত ঘটা রোধ করতে হবে।

৪/পরবর্তী জরুরী কোন সিদ্ধান্ত নেয়া কিংবা না নেয়া ধুপাগুলের রাস্তার কাজের উপর নির্ভর করবে।কাজ না হলে,কিছুদিন ধৈর্য্য ধরে পূণরায় মতবিনিময় সভা ডেকে এলাকার মোরব্বিয়ান,যুব সমাজ,ছাত্র-শিক্ষক,শ্রমিক জনতাকে সাথে নিয়ে মতবিনিময় করে আন্দোলন করতে হবে।

৫/ইউনিয়ন পরিষদ ব্যর্থ হলে,পরবর্তী আন্দোলন হবে খাদিমনগর ইউনিয়নের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় আন্দোলন।
রাস্তা বর্জন করে কোম্পানিগন্জ এবং এয়ারপোর্ট রাস্তা ব্লক করে দেয়ার মতন সিদ্বান্ত আসতে পারে।রাস্তার জন্য যা যা প্রয়োজন সব করবে যুব সমাজ।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

চা শ্রমিক ডটকমঃ গত ২ মার্চ সোমবার রাতেই নির্মমভাবে খুন করা হয় নিরীহ চা শ্রমিক বিশু মুন্ডাকে। ৩ মার্চ মঙ্গলবার বিশুর লাশ উদ্ধার করেন চুনারুঘাটের পুলিশ এবং বাগানের ২ মেম্বার ও পঞ্চায়েতের উপর তদন্ত করার অাদেশ দেওয়া হয় তদন্তে সফল নাহলে বুধবার রাতেই চুনারুঘাট পুলিশ বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করতে থাকে বুধবার রাত ৮ টার সময় বিশু খাড়িয়া ও বুড়ু মুন্ডাকে পুলিশ জিঙ্গাসাবাদে জন্য চুনারুঘাট থানায় নিয়ে যায় এবং সেদিন রাতে অনিল ঝরা কালা কে ও রাত ১১ টায় অাটক করা হয়। ৫ মার্চ বৃহস্পতিবারে সকালে বিষ্ণু ঝরাকে ও থানায় নেওয়া হয়। তিনদিনের মধ্য নালুয়া চা বাগানের চা শ্রমিক খুনের ঘটনায় দু’জনের স্বীকারোক্তি জবানবন্দী দিয়েছে আসামী বিশু খাড়িয়া।

৬ মার্চ শুক্রবার হবিগঞ্জের আমলি আদালত ২ এর সিনিয়ার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল হাসান এর কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেয় সে।

স্বীকারোক্তিতে আসামী বিশু খাড়িয়া জানান, আসামি বিশু খাড়িয়ার মেয়ে গঙ্গামনি কে নালুয়া চা বাগানের পশ্চিমটিলায় বিয়ে দেন। আসামীর মেয়ের পরপর দুইটা বাচ্চা মারা যায়। বিশু খাড়িয়া কবিরাজের কাছে নিয়ে গেলে, কবিরাজ বলে নিহত বিষু মুন্ডা তার মেয়ের উপর টুটকা (যাদু) করায় মেয়ের বাচ্চা গুলো মারা যায়। এই কথা শুনে আসামীর মাথা গরম হয়ে যায়। সে তাকে মারার জন্য বিভিন্ন ভাবে ওত পেতে থাকে।

গত ০২-০৩-২০২০ ইং সোম বার পাশের গ্রামের মুলু সাওতালের বাড়ীতে তার ছেলের বিয়েতে যায় তারা । সেখানে আরো লোকজনের সাথে আসামি ও তার বায়রা ললির ছেলে কালা ঝরা, বিশু মুন্ডা ও ছিল। বিয়ে বাড়ীতে খাওয়া দাওয়া ও গান বাজনা শেষে বুড়ু মুন্ডার বাড়ীতে সবাই হারিয়া (মদ) খায়।

বিয়ে বাড়ীতে গান গাওয়া নিয়ে আসামি আর বিষু মুন্ডার মধ্য কথা কাটাকাটি হয়।পরে রাত ১১.০০ টার দিকে হারিয়া (মদ) খাওয়া শেষে আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালা ঝরা নিহত বিশু কে নিয়া বট গাছের নিচে আসে। পরে পাশের খলা হতে বাশ আনিয়া প্রথমে কালা ঝরা নিহত বিষু মুন্ডার মাথায় দুটি আঘাত (বারি) করে। আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালার হাত থেকে বাশ নিয়া নিহত বিশু মুন্ডার মাথায় একটি (বারি) আঘাত করে।

বিশু মুন্ডা মাটিতে পড়ে গেলে বিশুর গলার মাফলার দিয়া আসামি ও কালা তার গলায় পেচিয়ে ফাঁস লাগায়।

পরে আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালা বিশু মুন্ডার লাশ তার গলার মাফলারে ধরিয়া টানিয়া পাশের দুমদুমিয়া বিলের পাড়ে ফেলে দেয়।

পরে তারা বাড়ীতে চলে যায়।
উল্লেখ্য গত ৩ মার্চ সকালে নালুয়া চা বাগানের পিকনিক স্পট দুমদুমিয়াতে বিশু মুন্ডার লাশ পাওয়া যায়। পরে সার্কেল এএসপি নাজিম উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার ওসি শেখ নাজমুল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
পরে ওসি তদন্ত চম্পক দাম ও মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই শহিদুল ইসলাম তদন্ত করে তিন দিনের মধ্য ঘটনার সাথে জড়িত আসামীদের গ্রেফতার করে ঘটনা স্বীকারোক্তি নেন।

নালুয়ার চা শ্রমিকের হত্যাকারী গ্রেফতার স্বীকারোক্তি জবানবন্দী দিলেন অাসামীরা