কলচার্জ-এমবি চার্জ ফ্রি চাইলেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৬ এপ্রিল, ২০২০
  • ৮৩৯ Time View

চা শ্রমিক ডটকমঃ দেশের এই ক্রান্তি-লগ্নে সরকারি মোবাইল অপারেটরসহ সকল অপারেটরগুলোর কাছে কলচার্জ-এমবি চার্জ ফ্রি চাইলেন সোশ্যাল মিডিয়ার সরব মুখ ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। সোমবার বিকেল ৩টা ২৮ মিনিটে তার ফেসবুক পেইজে লাইভে এসে তিনি এ দাবি জানান।

লাইভের শুরুতে সুমন বলেন, করোনায় সারা বাংলাদেশ লকডাউনে আছে। মৃত্যুর মুখোমুখি থেকে আমরা বলতে চাই, সরকারের নির্দেশনামত আমরা ঘরে থাকার চেষ্টা করেই যাচ্ছি। সবাই চেষ্টায় আছে, এই মহাজাগতিক দুর্যোগের মোকাবেলা কিভাবে করা যায়। কিন্তু এই ক্রান্তি-লগ্নে যারা ব্যবসার চিন্তা করে তারা আর যাইহোক বাংলাদেশের মানুষের বন্ধু হতে পারে নাই। আমি ফোন কোম্পানিগুলোর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, আমাদের তো বর্তমানে বাসায় কাজ নেই, বাচ্চারা চিল্লাচিল্লি করে। তাদের আনন্দ দেয়ার জন্য কার্টুন বা অন্য কিছুর ব্যবস্থা করতে হয়। নিজেদের জন্যও খবর দেখতে বা আত্ম বিনোদনের জন্য নেট দরকার। আমরা এখন ইন্টারনেটের উপর নির্ভর হয়ে গেছি। দেশের এই সময়টাতে কি আপনারা কলচার্জ ও এমবি চার্জ কমাতে পারেন না?

গ্রামীনফোনের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা তো ১২০০০ কোটি টাকার মধ্যে সরকারকে একহাজার কোটি টাকা দিতে কত নাটক করছেন। এখন দেশের এই শোচনীয় অবস্থায় কি এই কাজটা করতে পারেন না। আপনারা তো চ্যারিটির টাকা দিয়ে এই কোম্পানি গড়ে তুলেছেন। ব্যবসা আপনাদের চেয়ে কেউ ভালো বুঝে না। একটা মেসেজ দিয়ে কতভাবে টাকা কেটে নেন। লম্বা সময় না দেন, এক দুই মিনিটের জন্য তো ফ্রি করতে পারেন?

সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে সুমন বলেন বলেন, কোম্পানিগুলোর ট্যাক্স কমিয়ে কলরেট, এমবি রেট কমানোর ব্যবস্থা করেন। দেশের সবকিছু বন্ধ, একজন মানুষ কিভাবে টাকা রিচার্জ করবে?

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

চা শ্রমিক ডটকমঃ গত ২ মার্চ সোমবার রাতেই নির্মমভাবে খুন করা হয় নিরীহ চা শ্রমিক বিশু মুন্ডাকে। ৩ মার্চ মঙ্গলবার বিশুর লাশ উদ্ধার করেন চুনারুঘাটের পুলিশ এবং বাগানের ২ মেম্বার ও পঞ্চায়েতের উপর তদন্ত করার অাদেশ দেওয়া হয় তদন্তে সফল নাহলে বুধবার রাতেই চুনারুঘাট পুলিশ বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করতে থাকে বুধবার রাত ৮ টার সময় বিশু খাড়িয়া ও বুড়ু মুন্ডাকে পুলিশ জিঙ্গাসাবাদে জন্য চুনারুঘাট থানায় নিয়ে যায় এবং সেদিন রাতে অনিল ঝরা কালা কে ও রাত ১১ টায় অাটক করা হয়। ৫ মার্চ বৃহস্পতিবারে সকালে বিষ্ণু ঝরাকে ও থানায় নেওয়া হয়। তিনদিনের মধ্য নালুয়া চা বাগানের চা শ্রমিক খুনের ঘটনায় দু’জনের স্বীকারোক্তি জবানবন্দী দিয়েছে আসামী বিশু খাড়িয়া।

৬ মার্চ শুক্রবার হবিগঞ্জের আমলি আদালত ২ এর সিনিয়ার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল হাসান এর কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেয় সে।

স্বীকারোক্তিতে আসামী বিশু খাড়িয়া জানান, আসামি বিশু খাড়িয়ার মেয়ে গঙ্গামনি কে নালুয়া চা বাগানের পশ্চিমটিলায় বিয়ে দেন। আসামীর মেয়ের পরপর দুইটা বাচ্চা মারা যায়। বিশু খাড়িয়া কবিরাজের কাছে নিয়ে গেলে, কবিরাজ বলে নিহত বিষু মুন্ডা তার মেয়ের উপর টুটকা (যাদু) করায় মেয়ের বাচ্চা গুলো মারা যায়। এই কথা শুনে আসামীর মাথা গরম হয়ে যায়। সে তাকে মারার জন্য বিভিন্ন ভাবে ওত পেতে থাকে।

গত ০২-০৩-২০২০ ইং সোম বার পাশের গ্রামের মুলু সাওতালের বাড়ীতে তার ছেলের বিয়েতে যায় তারা । সেখানে আরো লোকজনের সাথে আসামি ও তার বায়রা ললির ছেলে কালা ঝরা, বিশু মুন্ডা ও ছিল। বিয়ে বাড়ীতে খাওয়া দাওয়া ও গান বাজনা শেষে বুড়ু মুন্ডার বাড়ীতে সবাই হারিয়া (মদ) খায়।

বিয়ে বাড়ীতে গান গাওয়া নিয়ে আসামি আর বিষু মুন্ডার মধ্য কথা কাটাকাটি হয়।পরে রাত ১১.০০ টার দিকে হারিয়া (মদ) খাওয়া শেষে আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালা ঝরা নিহত বিশু কে নিয়া বট গাছের নিচে আসে। পরে পাশের খলা হতে বাশ আনিয়া প্রথমে কালা ঝরা নিহত বিষু মুন্ডার মাথায় দুটি আঘাত (বারি) করে। আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালার হাত থেকে বাশ নিয়া নিহত বিশু মুন্ডার মাথায় একটি (বারি) আঘাত করে।

বিশু মুন্ডা মাটিতে পড়ে গেলে বিশুর গলার মাফলার দিয়া আসামি ও কালা তার গলায় পেচিয়ে ফাঁস লাগায়।

পরে আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালা বিশু মুন্ডার লাশ তার গলার মাফলারে ধরিয়া টানিয়া পাশের দুমদুমিয়া বিলের পাড়ে ফেলে দেয়।

পরে তারা বাড়ীতে চলে যায়।
উল্লেখ্য গত ৩ মার্চ সকালে নালুয়া চা বাগানের পিকনিক স্পট দুমদুমিয়াতে বিশু মুন্ডার লাশ পাওয়া যায়। পরে সার্কেল এএসপি নাজিম উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার ওসি শেখ নাজমুল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
পরে ওসি তদন্ত চম্পক দাম ও মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই শহিদুল ইসলাম তদন্ত করে তিন দিনের মধ্য ঘটনার সাথে জড়িত আসামীদের গ্রেফতার করে ঘটনা স্বীকারোক্তি নেন।

নালুয়ার চা শ্রমিকের হত্যাকারী গ্রেফতার স্বীকারোক্তি জবানবন্দী দিলেন অাসামীরা