দ্বিতীয় দফায় প্রধানমন্ত্রী ও তথ্যমন্ত্রীর নিকট সাংবাদিকদের বরাদ্দের দাবিতে স্মারকলিপি

অনলাইন ডেস্কঃ
  • Update Time : শুক্রবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২০
  • ৭০৮ Time View

চা শ্রমিক ডটকমঃঅনলাইন ডেস্কঃ গতকাল ২৩ এপ্রিল ২০২০: দ্বিতীয় দফায় সারাদেশের সাংবাদিকদের অনুকূলে বিশেষ বরাদ্দের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও তথ্যমন্ত্রীর নিকট ইমেইলে আজ বৃহস্পতিবার সকালে স্মারকলিপি পাঠানো হয়েছে। বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম-বিএমএসএফ’র কেন্দ্রীয় সভাপতি শহীদুল ইসলাম পাইলট ও সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আবু জাফর সকল জেলা-উপজেলার সাংবাদিকদের পক্ষে স্মারকলিপিটি পাঠান।

স্মারকলিপিতে দাবি করা হয়, চলমান মহামারী করোনা মোকাবেলায় সরকারের প্রশাসন ও চিকিৎসকের পাশাপাশি সাংবাদিকরা দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখছেন। সরকারের পক্ষ থেকে একমাত্র সাংবাদিক ছাড়া বিভিন্ন শ্রেনীপেশার মানুষকে প্রণোদনার আওতায় আনা হয়েছে। যা সাংবাদিকদের জন্য ভীষন বেদনা ও পীড়াদায়ক।

এদিকে গত ১৯ এপ্রিল বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল থেকে সারাদেশের সাংবাদিকদের আর্থিক সহায়তা প্রদানের জন্য সকল জেলা প্রশাসককে চিঠি প্রদান করা হয়েছিল। কিন্তু ওই চিঠিটি অনিবার্যকারন দেখিয়ে ২১ এপ্রিল প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। এতে সারাদেশের সাংবাদিকেরা লজ্জিত ও ব্যথিত হয়েছে। ফলে গত দু’দিন ধরে প্রেস কাউন্সিলের দায়িত্বে থাকা চেয়ারম্যান-সচিবের অপসারণ ও পরিচালনা কমিটি পূনর্গঠনের দাবি করা হয়েছে।

এছাড়া ২১ এপ্রিল ঢাকায় তথ্যমন্ত্রীর নিকট কিছু সাংবাদিকের একটি তালিকা দাখিল করে বিএফইউজে ও ডিইউজে নেতৃবৃন্দ। এতে কেবল তাদের সংগঠনের সাংবাদিকদের স্বার্থই দেখা হয়েছে। কিন্তু মহামারী করোনায় সারাদেশের সাংবাদিকরাইতো দায়িত্ব পালন করছেন, তবে কেনো তাদেরকে সহায়তার আওতায় আনা হবেনা! সকল ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও তথ্যমন্ত্রীর আশু নির্দেশণা আশা করছে দেশের সকল সাংবাদিকেরা।

সারাদেশের সংকটময় মূহূর্তে সাংবাদিকরাই তাৎক্ষনিক খবর পৌঁছে দিয়ে জনসচেতনতা তৈরী করে থাকেন। ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৬৯’র গণঅভূত্থান ও ৭১’র মুক্তিযুদ্ধসহ রাষ্ট্রীয় প্রয়োজনে সাংবাদিকদের ভূমিকা ছিল প্রশংসনীয়। কিন্তু স্বাধীনতার ৪৯ বছর পেরিয়ে গেলেও একমাত্র সাংবাদিকরাই রাষ্ট্রের কাছ থেকে কোন সুবিধাদি গ্রহন করেনি।

ইতিমধ্যে চলমান করোনায় প্রায় ১৫-১৬ জন সাংবাদিক আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের সুচিকিৎসার দাবি করা হয়।

স্মারকলিপিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও তথ্যমন্ত্রীর প্রতি বিশেষ অনুরোধ রাখা হয় যে, কোন কুলীন সাংবাদিক কিংবা তাদের সংগঠনের নেতাদের কথায় কান না দিয়ে আপনার প্রশাসনের দ্বারা খোঁজ নিয়ে অথবা নিজগুনে দাবির বিষয়টি বিবেচনা করবেন। তথ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে জেলা-উপজেলা অনুযায়ী কর্মরত পেশাদার সাংবাদিকদের অনুকূলে চলমান করোনা মোকাবেলায় বিশেষ অর্থ সহায়তা বরাদ্দেরও দাবি করেন নেতৃবৃন্দ (খবর বিজ্ঞপ্তি)।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

চা শ্রমিক ডটকমঃ গত ২ মার্চ সোমবার রাতেই নির্মমভাবে খুন করা হয় নিরীহ চা শ্রমিক বিশু মুন্ডাকে। ৩ মার্চ মঙ্গলবার বিশুর লাশ উদ্ধার করেন চুনারুঘাটের পুলিশ এবং বাগানের ২ মেম্বার ও পঞ্চায়েতের উপর তদন্ত করার অাদেশ দেওয়া হয় তদন্তে সফল নাহলে বুধবার রাতেই চুনারুঘাট পুলিশ বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করতে থাকে বুধবার রাত ৮ টার সময় বিশু খাড়িয়া ও বুড়ু মুন্ডাকে পুলিশ জিঙ্গাসাবাদে জন্য চুনারুঘাট থানায় নিয়ে যায় এবং সেদিন রাতে অনিল ঝরা কালা কে ও রাত ১১ টায় অাটক করা হয়। ৫ মার্চ বৃহস্পতিবারে সকালে বিষ্ণু ঝরাকে ও থানায় নেওয়া হয়। তিনদিনের মধ্য নালুয়া চা বাগানের চা শ্রমিক খুনের ঘটনায় দু’জনের স্বীকারোক্তি জবানবন্দী দিয়েছে আসামী বিশু খাড়িয়া।

৬ মার্চ শুক্রবার হবিগঞ্জের আমলি আদালত ২ এর সিনিয়ার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল হাসান এর কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেয় সে।

স্বীকারোক্তিতে আসামী বিশু খাড়িয়া জানান, আসামি বিশু খাড়িয়ার মেয়ে গঙ্গামনি কে নালুয়া চা বাগানের পশ্চিমটিলায় বিয়ে দেন। আসামীর মেয়ের পরপর দুইটা বাচ্চা মারা যায়। বিশু খাড়িয়া কবিরাজের কাছে নিয়ে গেলে, কবিরাজ বলে নিহত বিষু মুন্ডা তার মেয়ের উপর টুটকা (যাদু) করায় মেয়ের বাচ্চা গুলো মারা যায়। এই কথা শুনে আসামীর মাথা গরম হয়ে যায়। সে তাকে মারার জন্য বিভিন্ন ভাবে ওত পেতে থাকে।

গত ০২-০৩-২০২০ ইং সোম বার পাশের গ্রামের মুলু সাওতালের বাড়ীতে তার ছেলের বিয়েতে যায় তারা । সেখানে আরো লোকজনের সাথে আসামি ও তার বায়রা ললির ছেলে কালা ঝরা, বিশু মুন্ডা ও ছিল। বিয়ে বাড়ীতে খাওয়া দাওয়া ও গান বাজনা শেষে বুড়ু মুন্ডার বাড়ীতে সবাই হারিয়া (মদ) খায়।

বিয়ে বাড়ীতে গান গাওয়া নিয়ে আসামি আর বিষু মুন্ডার মধ্য কথা কাটাকাটি হয়।পরে রাত ১১.০০ টার দিকে হারিয়া (মদ) খাওয়া শেষে আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালা ঝরা নিহত বিশু কে নিয়া বট গাছের নিচে আসে। পরে পাশের খলা হতে বাশ আনিয়া প্রথমে কালা ঝরা নিহত বিষু মুন্ডার মাথায় দুটি আঘাত (বারি) করে। আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালার হাত থেকে বাশ নিয়া নিহত বিশু মুন্ডার মাথায় একটি (বারি) আঘাত করে।

বিশু মুন্ডা মাটিতে পড়ে গেলে বিশুর গলার মাফলার দিয়া আসামি ও কালা তার গলায় পেচিয়ে ফাঁস লাগায়।

পরে আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালা বিশু মুন্ডার লাশ তার গলার মাফলারে ধরিয়া টানিয়া পাশের দুমদুমিয়া বিলের পাড়ে ফেলে দেয়।

পরে তারা বাড়ীতে চলে যায়।
উল্লেখ্য গত ৩ মার্চ সকালে নালুয়া চা বাগানের পিকনিক স্পট দুমদুমিয়াতে বিশু মুন্ডার লাশ পাওয়া যায়। পরে সার্কেল এএসপি নাজিম উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার ওসি শেখ নাজমুল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
পরে ওসি তদন্ত চম্পক দাম ও মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই শহিদুল ইসলাম তদন্ত করে তিন দিনের মধ্য ঘটনার সাথে জড়িত আসামীদের গ্রেফতার করে ঘটনা স্বীকারোক্তি নেন।

নালুয়ার চা শ্রমিকের হত্যাকারী গ্রেফতার স্বীকারোক্তি জবানবন্দী দিলেন অাসামীরা