চা বাগানেও করোনা, শ্রমিকদের মাঝে আতঙ্ক সমজুরিতে ছুটির দাবি।

রাজেশ ভৌমিক ভুড়ভুড়িয়া চা বাগান প্রতিনিধি
  • Update Time : সোমবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২০
  • ১০৫৩ Time View

চা শ্রমিক ডটকমঃ হবিগঞ্জে এক চা-শ্রমিক ও মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের এক চা-বাগানের বাসিন্দা করোনা আক্রান্ত হওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে উভয় জেলার দুটি চা বাগানে। গাদাগাদি করে স্বাস্থ্য সুরক্ষাহীন ভাবে কাজ করা চা শ্রমিকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে করোনার আতঙ্ক।

সর্বশেষ রোববার মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের এক চা বাগানের বাসিন্দার করোনা শনাক্ত হয়। এর আগে হবিগঞ্জের একটি চা শ্রমিকের সন্তান করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। পরে তার এক স্বজন চা শ্রমিকও করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হন। সব মিলিয়ে চা বাগানে করোনার হানার কারণে শ্রমিকদের মাঝে আতঙ্ক দেখা দিলেও ছুটি না থাকায় ঝুঁকি নিয়েও কাজ করছেন শ্রমিকরা।

রোববার সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষার ফলাফলে করোনা শনাক্ত হওয়া ব্যাক্তি হলেন মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে চা-বাগানের এক বাসিন্দা ঢাকা ফেরত শিক্ষার্থী।

এ ব্যাপারে কালিঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রানেশ গোয়ালা বলেন, যিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তিনি ঢাকা ফেরত শিক্ষার্থী ও শ্রীমঙ্গলের একটি চা বাগানের বাসিন্দা। তিনি গত ২২ এপ্রিল ঢাকার যাত্রাবাড়ী থেকে শ্রীমঙ্গল এসে হোম কোয়ারেন্টিনে ছিলেন। এখনো তা মেনে চলছেন।

শ্রীমঙ্গলের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী বলেন, আক্রান্ত শিক্ষার্থী হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা অবস্থায় আমরা গত ২৩ এপ্রিল তার নমুনা সংগ্রহ করে পাঠিয়েছিলাম। রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে ।

শ্রীমঙ্গলের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলেন, আমরা রোগীর বাসায় গিয়েছি। তিনি বাসাতেই আছেন। প্রাথমিকভাবে তার বাসা লকডাউন করা হয়েছে। পরে প্রয়োজন হলে পুরো বাগান লকডাউন করা হবে।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে সারা দেশে যখন চলছে অঘোষিত লকডাউন, বন্ধ সরকারি-বেসরকারি প্রায় সব প্রতিষ্ঠান তখন চা-বাগানগুলোতে উৎপাদন অব্যাহত রয়েছে। ঝুঁকি নিয়েই বাগানে কাজ করছেন শ্রমিকেরা। দেশে ১৬৬টি চা বাগানে কাজ করছেন দেড় লাখেরও বেশি শ্রমিক। এর মধ্যে ১৩৪টি বাগানই সিলেট বিভাগে। করোনা সংক্রমণের ঝুঁকির কারণে বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের পক্ষ থেকে বাগানের কাজ বন্ধ রাখার দাবি জানানো হলেও তা হয়নি।
চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সত্যজিৎ রায় দাশ বলেন, বাগানের এক শ্রমিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত।ঐ শ্রমিক হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ইতিমধ্যে চণ্ডীছড়া চা-বাগানের ১২টি বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

চা-শ্রমিকের সন্তানের মৃত্যু সম্পর্কে তিনি বলেন,‘শিশুটি ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিল। চিকিৎসার জন্য পরিবারের সদস্যরা তাকে নিয়ে ২০ দিন ঢাকায় ছিলেন। গত ২০ এপ্রিল তারা তাকে ঢাকা থেকে বাগানে নিয়ে আসেন। ঢাকা থেকে আসার কারণে ওই শিশুসহ তার পরিবারের পাঁচ সদস্যকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়। তাদের নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষার জন্য ওসমানী মেডিকেল কলেজের ল্যাবে পাঠানো হলে ওই শিশু ও তার এক আত্মীয়ের করোনা পজিটিভ আসে। এরপরই চা বাগানের ১২টি বাড়ি লকডাউন করা হয়। তার মতে, করোনা পজিটিভ ধরা পড়লেও শিশুটি মূলত ক্যান্সারের কারণেই মারা গেছে।
খেজুরী চা-বাগানের এক শ্রমিক বলেন, একজন শ্রমিক আক্রান্ত হলে তা অনেক শ্রমিকের মধ্যে ছড়িয়ে পড়বে। এজন্য মজুরিসহ সাধারণ ছুটি ও সরকারি বরাদ্দের দাবি জানাই। আমরাও বাঁচতে চাই।

কুলাউড়ার মুরইছড়া চা-বাগানের মুনিয়া উরাং বলেন, চা-পাতা সংগ্রহকারী নারীরা দলে দলে কাজ করেন। শ্রম আইনে বলা থাকলেও আমাদের কর্মক্ষেত্রে স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেটের ব্যবস্থা নেই। আবার অনেক শ্রমিককে একই গ্লাসে পানি পান করতে হয়। অনেকে হাতের মুঠোয় ভরেও পানি পান করেন। ভাইরাস ছড়াতে এর থেকে বিপজ্জনক আর কী হতে পারে?

চা-শ্রমিক সংঘ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির আহ্বায়ক রাজদেও কৈরী বলেন, করোনা মহামারির মধ্যেও দেশের ১৬৬টি চা-বাগানের প্রায় ১ লাখ ৩০ হাজার চা ও রাবার শ্রমিকদের কাজ করতে বাধ্য করা হচ্ছে। অবিলম্বে মজুরি-রেশনসহ সব শ্রমিকদের ছুটি দেওয়ার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, গত ২৬ মার্চ থেকে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটি ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে গিয়ে ইতোমধ্যে দেশের অনেক জেলায় লকডাউন চলছে। এরকম পরিস্থিতিতে চা-বাগানে শ্রমিকদের কাজ করতে হচ্ছে। এতে স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে আছেন প্রায় ১০ লাখ চা-বাগান সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠী।

চা-শ্রমিকদের ঝুঁকির বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সিলেট বিভাগের উপ-পরিচালক ডা. আনিসুর রহমান বলেন, ‘এখন কাউকেই ঝুঁকিমুক্ত বলা যাবে না। চা-বাগানে শ্রমিকরা খুব গাদাগাদি অবস্থায় থাকেন। তাদের মধ্যে স্বাস্থ্য সচেতনতা ও পরিচ্ছন্নতা উপকরণের অভাবও রয়েছে। ফলে তারা ঝুঁকির মধ্যেই আছেন। এ অবস্থায় তাদের ঘরে থাকাই ভালো। বিষয়টি আমি সিলেটের বিভাগীয় কমিশনারকেও জানিয়েছি।

এদিকে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সহসভাপতি পঙ্কজ এ কন্দ বলেন, অনেক চা-বাগান শ্রমিকদের নিরাপদ দূরত্বের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখছে না। তারা শ্রমিকদের হাত ধোয়ার সাবান ও মাস্ক দেয়নি। এসব শ্রমিকরা ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন। প্রশাসন ও বাগান মালিকরা দ্রুত কোনো সিদ্ধান্ত না নিলে সারা দেশের চা-বাগানের পরিস্থিতি উত্তপ্ত হতে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন তিনি।

এ নিয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ চা-সংসদের চেয়ারম্যান মো. শাহ আলম বলেন, ‘করোনার সংক্রমণ রোধে আগে থেকেই বাগানে বহিরাগতদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। শ্রমিকদের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকতে বলা হয়েছে। তাদের মাস্ক-সাবান দেওয়া হয়েছে। সামাজিক দূরত্ব মেনে কাজ করতে বলা হয়েছে। শ্রমিকেরা তা মেনেও চলছেন। চায়ের ব্যবসা এমনিতেই খারাপ। ছুটি দিলে উৎপাদন বন্ধ হয়ে যাবে। এর প্রভাব শ্রমিকদের ওপরও পড়বে। সরকারও চা বাগানে ছুটি ঘোষণার কোনো নির্দেশনা দেয়নি।

হবিগঞ্জে এক চা-শ্রমিক ও মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের এক চা-বাগানের বাসিন্দা করোনা আক্রান্ত হওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে উভয় জেলার দুটি চা বাগানে। গাদাগাদি করে স্বাস্থ্য সুরক্ষাহীন ভাবে কাজ করা চা শ্রমিকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে করোনার আতঙ্ক।

সর্বশেষ রোববার মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের এক চা বাগানের বাসিন্দার করোনা শনাক্ত হয়। এর আগে হবিগঞ্জের একটি চা শ্রমিকের সন্তান করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। পরে তার এক স্বজন চা শ্রমিকও করোনা

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

চা শ্রমিক ডটকমঃ গত ২ মার্চ সোমবার রাতেই নির্মমভাবে খুন করা হয় নিরীহ চা শ্রমিক বিশু মুন্ডাকে। ৩ মার্চ মঙ্গলবার বিশুর লাশ উদ্ধার করেন চুনারুঘাটের পুলিশ এবং বাগানের ২ মেম্বার ও পঞ্চায়েতের উপর তদন্ত করার অাদেশ দেওয়া হয় তদন্তে সফল নাহলে বুধবার রাতেই চুনারুঘাট পুলিশ বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করতে থাকে বুধবার রাত ৮ টার সময় বিশু খাড়িয়া ও বুড়ু মুন্ডাকে পুলিশ জিঙ্গাসাবাদে জন্য চুনারুঘাট থানায় নিয়ে যায় এবং সেদিন রাতে অনিল ঝরা কালা কে ও রাত ১১ টায় অাটক করা হয়। ৫ মার্চ বৃহস্পতিবারে সকালে বিষ্ণু ঝরাকে ও থানায় নেওয়া হয়। তিনদিনের মধ্য নালুয়া চা বাগানের চা শ্রমিক খুনের ঘটনায় দু’জনের স্বীকারোক্তি জবানবন্দী দিয়েছে আসামী বিশু খাড়িয়া।

৬ মার্চ শুক্রবার হবিগঞ্জের আমলি আদালত ২ এর সিনিয়ার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল হাসান এর কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেয় সে।

স্বীকারোক্তিতে আসামী বিশু খাড়িয়া জানান, আসামি বিশু খাড়িয়ার মেয়ে গঙ্গামনি কে নালুয়া চা বাগানের পশ্চিমটিলায় বিয়ে দেন। আসামীর মেয়ের পরপর দুইটা বাচ্চা মারা যায়। বিশু খাড়িয়া কবিরাজের কাছে নিয়ে গেলে, কবিরাজ বলে নিহত বিষু মুন্ডা তার মেয়ের উপর টুটকা (যাদু) করায় মেয়ের বাচ্চা গুলো মারা যায়। এই কথা শুনে আসামীর মাথা গরম হয়ে যায়। সে তাকে মারার জন্য বিভিন্ন ভাবে ওত পেতে থাকে।

গত ০২-০৩-২০২০ ইং সোম বার পাশের গ্রামের মুলু সাওতালের বাড়ীতে তার ছেলের বিয়েতে যায় তারা । সেখানে আরো লোকজনের সাথে আসামি ও তার বায়রা ললির ছেলে কালা ঝরা, বিশু মুন্ডা ও ছিল। বিয়ে বাড়ীতে খাওয়া দাওয়া ও গান বাজনা শেষে বুড়ু মুন্ডার বাড়ীতে সবাই হারিয়া (মদ) খায়।

বিয়ে বাড়ীতে গান গাওয়া নিয়ে আসামি আর বিষু মুন্ডার মধ্য কথা কাটাকাটি হয়।পরে রাত ১১.০০ টার দিকে হারিয়া (মদ) খাওয়া শেষে আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালা ঝরা নিহত বিশু কে নিয়া বট গাছের নিচে আসে। পরে পাশের খলা হতে বাশ আনিয়া প্রথমে কালা ঝরা নিহত বিষু মুন্ডার মাথায় দুটি আঘাত (বারি) করে। আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালার হাত থেকে বাশ নিয়া নিহত বিশু মুন্ডার মাথায় একটি (বারি) আঘাত করে।

বিশু মুন্ডা মাটিতে পড়ে গেলে বিশুর গলার মাফলার দিয়া আসামি ও কালা তার গলায় পেচিয়ে ফাঁস লাগায়।

পরে আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালা বিশু মুন্ডার লাশ তার গলার মাফলারে ধরিয়া টানিয়া পাশের দুমদুমিয়া বিলের পাড়ে ফেলে দেয়।

পরে তারা বাড়ীতে চলে যায়।
উল্লেখ্য গত ৩ মার্চ সকালে নালুয়া চা বাগানের পিকনিক স্পট দুমদুমিয়াতে বিশু মুন্ডার লাশ পাওয়া যায়। পরে সার্কেল এএসপি নাজিম উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার ওসি শেখ নাজমুল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
পরে ওসি তদন্ত চম্পক দাম ও মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই শহিদুল ইসলাম তদন্ত করে তিন দিনের মধ্য ঘটনার সাথে জড়িত আসামীদের গ্রেফতার করে ঘটনা স্বীকারোক্তি নেন।

নালুয়ার চা শ্রমিকের হত্যাকারী গ্রেফতার স্বীকারোক্তি জবানবন্দী দিলেন অাসামীরা