চা নিয়ে এবার ভারত-নেপাল দন্ধে

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০২০
  • ৬০১ Time View

চা শ্রমিক ডটকম,  অনলাইন ডেস্কঃনেপাল থেকে ভারতের দার্জিলিং পাহাড়জুড়ে বিস্তৃত পূর্ব হিমালয়ের সঙ্ঘাত কেবল সীমান্তরেখা নিয়ে নয়, এটি চা উৎপাদনের যুদ্ধও। যুদ্ধটি দার্জিলিং চা বনাম নেপালি চা নিয়ে।

উভয়েই দাবি করে আসছে যে তারাই সেরা চা উৎপাদন করে। কিন্তু দার্জিলিং চা বাগান মালিক ও উৎপাদনকারীরা অভিযোগ করছেন যে করোনাভাইরাসের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে নেপাল তাদের অপেক্ষাকৃত সস্তা চাকে দার্জিলিংয়ের জনপ্রিয় প্রিমিয়ার চা হিসেবে প্রচার করছে। আর এর ফলে দার্জিলিং চায়ের উৎপাদন পড়ে গেছে।

অবশ্য নেপালিরা এই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলছে, যে মানের কথা বলা হচ্ছে, তা দার্জিলিং চা আবাদকারীরা উৎপাদন করতে পারছেন না। কিন্তু অন্যরা যখন তাদের ছাপিয়ে যাচ্ছে, তখন তারা হইচই করছেন।

দার্জিলিং চা শিল্প সূত্র জানাচ্ছে, লকডাউনের কারণে পাহাড়ের ৮৭টি বাগানের সবগুলোর চা গাছ গত তিন মাসে হয় শুকিয়ে গেছে কিংবা কারখানাগুলোতে স্তুপাকারে পড়ে আছে।

কিন্তু নেপালি চা উৎপাদনকারীরা এ ধরনের বিপর্যয়ে পড়েনি। তারা এখন ‘ভেজাল পাতার’ বন্যা বইয়ে দিচ্ছে ভারতের বাজারে। এগুলো আবার দার্জিলিং চা নামেই বিক্রি করা হচ্ছে বলে ভারতীয় আবাদকারীরা অভিযোগ করছেন।

নেপালি চায়ে ভারতের বাজার ভেসে যাওয়ায় ভারতের প্রথম জিওগ্রাফিক্যাল ইন্ডিকেশনের (জিআই) ট্যাগযুক্ত কৃষি উৎপাদনটির সুনামও ক্ষুণ্ন হচ্ছে।

চা শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট লোকজন সাউথ এশিয়ান মনিটরকে বলছেন, নেপালি চা সস্তা হওয়ায় তা দার্জিলিং চায়ের প্রতি হুমকি সৃষ্টি করছে। খুচরা বিক্রেতা, রফতানিকারক ও ব্লেন্ডাররা পর্যন্ত বলছেন যে কোনো ভোক্তার পক্ষে দুই ধরনের চায়ের মধ্যে পার্থক্য করা খুবই কঠিন।

তবে নেপাল ও ভারতের মধ্যে বৈরিতার প্রেক্ষাপটে দার্জিলিং চায়ের আবাদকারীরা নেপালের ‘সস্তা ও নিম্ন’ মানের চা বিক্রি নিষিদ্ধ করার দাবি জানাচ্ছেন। তারা অভিযোগ করছেন, খাদ্য নিরাপত্তার বিধান না মেনে এই চা আমদানি করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে দার্জিলিং টি এসোসিয়েশন (ডিটিএ) ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথোরিটি ইন ইন্ডিয়া ও টি বোর্ড ইন্ডিয়ার কাছে নালিশও করেছে।

ব্রিটিশ সেনা অফিসার ক্যাপ্টেন স্যামলারের অধীনে ১৮৪০-এর দশকে দার্জিলিংয়ে চা উৎপাদন শুরু হয়। অবশ্য দার্জিলিং পাহাড়ে ব্রিটিশ প্লান্টারদের বসতি স্থাপনের পর ১৮৫৬ সালে বাণিজ্যিক ভিত্তিকে চা উৎপাদন শুরু হয়। তবে ভারতে প্রতি বছর যত চা উৎপাদিত হয়, তার মাত্র ০.২ ভাগ তথা ৮.৫ মিলিয়ন কেজি উৎপাদিত হয় দার্জিলিংয়ে। তবে দার্জিলিংয়ে উৎপাদিত চায়ের ৬৫ ভাগ রফতানি হয়।

সারা বিশ্বে ‌‘ফার্স্ট ফ্লাশ ও সেকেন্ড ফ্লাস’ চা হিসেবে দার্জিলিং পরিচিত। ফার্স্ট ফ্লাশ হলো মার্চ-এপ্রিলে তোলা চা। এটি খুবই মসৃণ ও হালকা সোনালি রঙের হয়। অন্যদিকে সেকেন্ড ফ্লাশ হয় মধ্য মে থেকে মধ্য জুলাইয়ে। এটি ডার্ক আম্বার রঙের।

দার্জিলিংয়ের উৎপাদনকারীরা বছরে চারবার ফসল তোলেন। ফার্স্ট ফ্লাশ হলো তাদের মোট উৎপাদনের ২০ ভাগ। সেকেন্ড ফ্লাশও ২০ ভাগ। মুনসুন ফ্লাশ ৩০ ভাগ, অটম ফ্লাশ বাকি ৩০ ভাগ।

নেপালিরা যা বলছেন

নেপালের চা উৎপাদনকারীরা তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে বলছেন, দার্জিলিং পাহাড়ের কাছে তাদের চা ভারতের বাজারের শূন্যতা পূরণ করছে।

তাদের ভাষায় ভারতের মোট চায়ের মাত্র ৩০ ভাগ শীর্ষ মানের। এগুলো রফতানি হয়। আর অর্থোডক্স চা নামে পরিচিত নেপালি চা হয় একই পরিবেশ।

নেপালিরা বলছে, তাদের চায়ের মান, ঘ্রাণ ও স্বাদের কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে ক্রমাগত জনপ্রিয় হচ্ছে। আর দার্জিলিং চায়ের বিপরীতে নেপালি চায়ের একটি বড় সুবিধা হলো, এগুলো অনেক ছোট বাগানে হয়। বেশির ভাগ কারখানায় হাতে হাতে প্যাকেট করা হয়।

এক নেপালি প্লান্টার বলেন, চা শিল্প খুবই শ্রমঘন। মানসম্পন্ন শ্রমিক না পাওয়ায় দার্জিলিংয়ের উৎপাদনকারীরা মান ধরে রাখতে পারছেন না। ফলে তারা শ্রীলঙ্কার মতো দেশের উৎপাদনকারীদের কাছে বাজার হারাচ্ছেন।

শ্রমিক সঙ্কটে ভুগছে দার্জিলিংয়ের চা শিল্প। তরুণ প্রজন্ম চা বাগানে কাজ না করে বড় বড় নগরীতে পাড়ি দিচ্ছে উন্নত জীবনের সন্ধানে। ফলে শ্রমিক সঙ্কট এখানে মারাত্মক।

নেপালের ন্যাশনাল টি অ্যান্ড কফি ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের তথ্যানুযায়ী, নেপালে বছরে ২৫ মিলিয়ন কেজি চা উৎপাদিত হয়। এর মধ্যে ২০ মিলিয়ন কেজি ক্রাশ, টিয়ার ও কার্ল (সিটিসি) চা। আর ৫ মিলিয়ন কেজি অর্থোডক্স চা। সিটিসি চায়ের পুরোটাই আসে পূর্বাঞ্চলীয় তেরাই অঞ্চলের ঝাপায়। আর অর্থোডক্স চা হয় পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলে।

নেপালে বছরে যে ৫.৫ মিলিয়ন টন অর্থোডক্স চা উৎপাদিত হয়, তার ৮০ ভাগ ভারতের বাজারে যায়। আর ১০ ভাগ যায় পাশ্চাত্যের বাজারে। ভারত প্রতি বছর নেপাল থেকে ১০-১২ মিলিয়ন টন সিটিসি এবং ৪ থেকে ৪.৫ মিলিয়ন টন অর্থোডক্স চা আমদানি করে।

এদিকে শ্রীলঙ্কার চা উৎপাদনকারীরা অবিশ্বাস্য কাজ করেছে সিলন টি ব্র্যান্ড নামে চা বিপণন করে। নেপাল, শ্রীলঙ্কা ও ভিয়েতনাম থেকে চা আমদানি করে তৃতীয় দেশে রফতানিতে নিয়োজিত কলকাতাভিত্তিক এক চা ব্যবসায়ী বলেন, নেপালের চায়ের ব্র্যান্ড নাম থাকা দরকার। তিনি বলেন, দিলমা চা শ্রীলঙ্কার খুবই জনপ্রিয় একটি ব্র্যান্ড। এটি সারা দুনিয়ায় পরিচিত।

তিনি বলেন, ভারতে চায়ের দীর্ঘ ইতিহাস সত্ত্বেও দেশটি আন্তর্জাতিক বাজারে কোনো ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

চা শ্রমিক ডটকমঃ চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি ১৭০ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর পরিপ্রেক্ষিতে নিজেদের অবস্থানের কথা জানিয়েছে চা বাগান মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ টি অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএ)। চা শিল্পে উৎপানদনশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে শ্রমিক-মালিকদের ঐক্য এবং সরকারের সর্বাত্মক সহযোগিতা চেয়েছে সংগঠনটি।

সোমবার (২৯ আগস্ট) বাংলাদেশ টি অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান এম শাহ আলম স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সংগঠনের পক্ষ থেকে তাদের অবস্থান তুলে ধরার পাশাপাশি এ শিল্পের প্রকৃত চিত্রও তুলে ধরা হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয়, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৫৭-১৯৫৮ সালে চা বোর্ডের প্রথম বাঙালি চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি চা শিল্পের সামগ্রিক উন্নয়ন ও উৎপাদন বৃদ্বির লক্ষ্যেই শ্রীমঙ্গলে চা গবেষণা ইনিস্টিটিউটে স্থাপনের মাধ্যমে বাংলাদেশে চা শিল্পেই সুদূরপ্রসারী উন্নয়নের যাত্রা ও সার্বিক বিকাশের পথ উন্মোচন করেন। তিনি ১৯৭২ সালে রব কমিশন গঠন করে চা শিল্পের সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। ১৯৭২-৭৪ সালে চা বাগানের বিধ্বস্ত কারখানা চালু করার লক্ষ্যেই ভারত থেকে আইডিবিআই ঋণের ব্যবস্থা করে চা শিল্পকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সভায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশীয় চা সংসদের চেয়ারম্যান এম শাহ আলম। তিনি টি অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি জমা দেন।

বিটিএর পক্ষ থেকে ওই সভায় জানানো হয়, দেশে চা একটি কল্যাণমূলক শিল্পের আদর্শ হিসেবে দেড় শতাব্দীর অধিক সময় ধরে গড়ে উঠেছে। এ শিল্পে নিয়োজিত একজন শ্রমিক নগদ মজুরি এবং দ্রব্য ও অনগদ পারিশ্রমিক বাবদ মজুরি পেয়ে থাকেন, যার পরিমাণ মজুরির নগদ অংশের দ্বিগুণের বেশি। স্বাধীনতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে নারীদের অধিকার ও সম্মান প্রদানে চা শিল্পই প্রথম পদক্ষেপ নেয়। ১৬৮ বছরের পুরোনো শিল্প হিসেবে বাংলাদেশের অন্যান্য যেকোনো শিল্পের তুলনায় অনেক আগে থেকেই শ্রম আইন অনুসরণপূর্বক ১৯৭০ দশকে লিঙ্গবৈষম্য দূরীকরণ এর মাধ্যমে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সমকাজের জন্য সমমজুরি নিশ্চিত করেছে।

চা শিল্পে ১৯৩৯ সাল থেকে শ্রমিকদের মাতৃত্বকালীন স্বাস্থ্য নিশ্চিত করার লক্ষ্যে মাতৃত্বকালীন ছুটির প্রচলন করা হয় এবং মাতৃকালীন ছুটি ও আইন নির্ধারিত মাতৃত্বকালীন ভাতা দিয়ে থাকে। চা বাগানগুলো গর্ভ ও প্রসবকালীন জটিলতাসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করছে, যা বাংলাদেশে প্রচলিত অন্য শিল্পে বিরল। সর্বোপরি, সবদিক থেকেই চা শিল্প অনেক আগে থেকে সুসংগঠিত একটি শিল্প।

চা শিল্পে প্রতি শ্রমিককে ২ টাকা কেজি দরে মাসে গড়ে প্রায় ৪২ কেজি চাল রেশন হিসেবে দেওয়া হয়, যার বাজার মূল্য প্রায় ২ হাজার ৩১০ টাকা অথবা সমপরিমান আটা দেওয়া হয়। তাছাড়া, শ্রমিকদের খাদ্য নিরাপত্তা আরও সুদৃঢ় করার লক্ষ্যে চা শিল্পে প্রায় ৯৪ হাজার ২০০ বিঘা জমি চাষাবাদের জন্য চা শ্রমিকদের দেওয়া হয়েছে।

চা শ্রমিক ও তার পুরো পরিবারের সবাই বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা পেয়ে থাকেন। অথচ অন্যান্য শিল্পে শুধু শ্রমিকরা এ সুবিধা পান। শ্রমিকদের মৃত্যুর পরেও তার পরিবারের জন্য এ সুবিধা বহাল থাকে।
উল্লেখ্য যে, শ্রমিকদের স্বাস্থ্যসুরক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে চা শিল্পে দুটি বড় আকারের আধুনিক গ্রুপ হাসপাতাল ও ৮৪টি গার্ডেন হাসপাতালে ৭২১ শয্যার ব্যবস্থা, ১৫৫টি ডিসপেনসারিসহ মোট ৮৯০ জনের অধিক মেডিকেল স্টাফ নিয়োজিত আছেন।

চা শ্রমিকের সন্তানদের সুশিক্ষা নিশ্চিত করতে প্রাথমিক, জুনিয়র ও উচ্চ বিদ্যালয়সহ মোট ৭৬৮টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপন করা হয়েছে। এসব বিদ্যালয়ে ১ হাজার ২৩২ জন শিক্ষক কর্মরত আছেন। বর্তমানে ৪৪ হাজার ৮০০ জনের বেশি শিক্ষার্থী বিনামূল্যে পড়ালেখার সুযোগ পাচ্ছেন।

চা শ্রমিকদের বসতবাড়ির জন্য বিনামূল্যে পরিবার প্রতি ন্যূনতম ১ হাজার ৫৫১ স্কয়ার ফিট জায়গায় দুটি থাকার ঘর, রান্নঘর এবং ল্যাট্রিনসহ বসতবাড়ি বাগানমালিক নির্মাণ করে দেয়। মোট ৫ হাজার ৮০০ বিঘা জমি শ্রমিকদের বসতবাড়ির জায়গা হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। তাছাড়া, গবাদি পশু পালনের জন্য চারণভূমি ও রাখালের খরচও বাগানমালিক বহন করে থাকেন।

একজন চা শ্রমিক অবসর গ্রহণ করলে তার পরিবর্তে তার পছন্দ অনুযায়ী পরিবারের একজনকে স্থায়ীভাবে নিয়োগ দেওয়া হয়। অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকরা অবসরভাতা পেয়ে থাকেন এবং ২ টাকা কেজি দরে চাল বা আটা পেয়ে থাকেন। এক হিসাবে দেখা যায় যে, দৈনিক ১৭০ টাকা নগদ মজুরি হলে তার সাথে দ্রব্য ও অনগদ পারিশ্রমিক মিলে মোট মজুরি গড়ে দৈনিক প্রায় ৫৪০ টাকা হয়।

উল্লেখ্য, বর্তমানে চায়ের গড় নিলাম মূল্য ২০২ টাকা এবং উৎপাদন ব্যয় প্রায় ২০০ টাকা। চা চাষের বহু উপাদানের মূল্য বহু পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ১০ বছরে চায়ের নিলাম মূল্য প্রতি কেজিতে ০.১৬% , শ্রমিক মজুরি ৭৩.৯১ % এবং উৎপাদন ব্যয় ৪৮% বৃদ্ধি পেয়েছে।

এ অবস্থায় চা শিল্পে উৎপানদনশীলতা বৃদ্ধির বিকল্প নেই। এই লক্ষ্যে শ্রমিক-মালিককে একসাথে কাজ করতে হবে এবং সরকারের সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রয়োজন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, বাংলাদেশ টি অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে এ আশাবাদ ব্যক্ত করা হচ্ছে যে, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার প্রতি সম্মান রেখে বাগানমালিকগণ ও বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের মধ্যকার সুদীর্ঘ দ্বিপাক্ষিক বিদ্যমান সুসম্পর্ক চা শিল্পের উন্নয়নের ধারা অক্ষুণ্ন রেখে এ শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখাসহ জাতীয় অর্থনীতিতে প্রাচীনতম এ শিল্পের অবদান অব্যাহত থাকবে।

চা শ্রমিকদের মজুরির বিষয়ে যা বলছে টি অ্যাসোসিয়েশন-