কাল বিরল বলয় গ্রাস সূর্যগ্রহণ

লিটন মুন্ডা লস্করপুর ভ্যালী প্রতিনিধি
  • Update Time : বুধবার, ২৫ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৯৭৩ Time View

চা শ্রমিক ডট কম : আগামীকাল বৃহস্পতিবার হতে যাচ্ছে বছরের শেষ সূর্যগ্রহণ। একে তো বছরের শেষ আবার এটা হচ্ছে বিরল ধরনের বলয় গ্রাস সূর্যগ্রহণ। তবে সূর্যগ্রহণটির পূর্ণরূপটি বাংলাদেশ থেকে দেখা যাবে না। আংশিক গ্রহণ দেখতে পারবেন বাংলাদেশের মানুষ। শ্রীলঙ্কা, দক্ষিণ ভারত, সৌদি আরব, কাতার, আমিরাত, ওমান, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপিন থেকে এটা খুব ভালোভাবে দেখতে পাওয়া যাবে। সূর্যগ্রহণটি বাংলাদেশ থেকে প্রথম দেখা যাবে সকাল ৮টা ৫৯ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে এবং শেষ হবে দুপুর ১২টা ৫ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে। জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা বলেছেন, খালি চোখে সূর্যগ্রহণ দেখা উচিত নয়। এতে চোখের ক্ষতি হতে পারে। এটা দেখা যাবে বিশেষ ধরনের সূর্য রশ্মিকে বাধা (সোলার ফিল্টার) দিতে পারে এমন চশমা দিয়ে। সাধারণ কালো সানগ্লাস দিয়ে সূর্যগ্রহণ দেখা ঠিক হবে না। এতেও চোখের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ওয়েল্ডিং করার কাজে চোখের সামনে যে গ্লাস ব্যবহার করা হয় এটি ব্যবহার করে সূর্যগ্রহণ দেখার জন্য নাসা অনুমোদন করে।

কেন সূর্যগ্রহণ হয়? জ্যেতির্বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, চন্দ্র যখন পৃথিবী ও সূর্যের মাঝে একই লাইনে চলে আসে তখন চন্দ্র দ্বারা সূর্য আড়াল হয়ে যায়, তখনই সূর্যগ্রহণ হয়। এটি সব সময় অমাবস্যার দিনেই হয়। প্রশ্ন হতে পারে প্রতি অমাবস্যায় হয় না কেন? কারণ পৃথিবী সূর্যকে কেন্দ্র করে চাঁদ ৫.১৫ ডিগ্রি কোণে করে ঘোরে। এ জন্য প্রতি অমাবস্যায় সূর্যগ্রহণ হয় না। সূর্যগ্রহণ চার প্রকার হয়ে থাকেÑ আংশিক গ্রহণ যা সূর্যের কিছু অংশ ঢেকে ফেলে, পূর্ণ গ্রহণ হলে কিছু সময়ের জন্য সূর্যকে পুরোপুরি ঢেকে ফেলে, বলয় গ্রহণ হলে কিছু সময়ের জন্য চন্দ্র সূর্যের মাঝে চলে যায়। এ সময় সূর্যকে চারিদিকে রিং বা আংটির মতো দেখায় এবং আরেক ধরনের গ্রহণের নাম হাইব্রিড গ্রহণ। এটা হলে পূর্ণ গ্রহণ ও বলয় গ্রহণের সমন্বয়; এটা খুব কম হয়ে থাকে। আগামীকালের গ্রহণটি হবে সূর্যের বলয় গ্রহণ।

১৯০১ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত মোট সূর্যগ্রহণ হয়েছে ২২৮টি। এর মধ্যে আংশিক গ্রহণ ৭৮টি, পূর্ণ গ্রহণ ৭১টি, বলয় গ্রহণ ৭৩টি ও হাইব্রিড গ্রহণ ৬টি। ২০০১ সাল থেকে ২১০০ সাল পর্যন্ত মোট সূর্যগ্রহণ ঘটবে ২২৪টি। এর মধ্যে আংশিক গ্রহণ হবে ৭৭টি, পূর্ণ গ্রহণ ৬৮টি, বলয় গ্রহণ হবে ৭২টি ও হাইব্রিড গ্রহণ ৭টি। পরবর্তী সূর্যগ্রহণটি হবে আগামী বছর ২১ জুন। এটি হবে বলয় গ্রহণ এবং এটি দেখা যাবে ইউরোপ ও অস্ট্রেলিয়ার কিছু অংশে এবং আফ্রিকা ও এশিয়া অধিকাংশ অঞ্চল থেকে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

চা শ্রমিক ডটকমঃ গত ২ মার্চ সোমবার রাতেই নির্মমভাবে খুন করা হয় নিরীহ চা শ্রমিক বিশু মুন্ডাকে। ৩ মার্চ মঙ্গলবার বিশুর লাশ উদ্ধার করেন চুনারুঘাটের পুলিশ এবং বাগানের ২ মেম্বার ও পঞ্চায়েতের উপর তদন্ত করার অাদেশ দেওয়া হয় তদন্তে সফল নাহলে বুধবার রাতেই চুনারুঘাট পুলিশ বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করতে থাকে বুধবার রাত ৮ টার সময় বিশু খাড়িয়া ও বুড়ু মুন্ডাকে পুলিশ জিঙ্গাসাবাদে জন্য চুনারুঘাট থানায় নিয়ে যায় এবং সেদিন রাতে অনিল ঝরা কালা কে ও রাত ১১ টায় অাটক করা হয়। ৫ মার্চ বৃহস্পতিবারে সকালে বিষ্ণু ঝরাকে ও থানায় নেওয়া হয়। তিনদিনের মধ্য নালুয়া চা বাগানের চা শ্রমিক খুনের ঘটনায় দু’জনের স্বীকারোক্তি জবানবন্দী দিয়েছে আসামী বিশু খাড়িয়া।

৬ মার্চ শুক্রবার হবিগঞ্জের আমলি আদালত ২ এর সিনিয়ার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল হাসান এর কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেয় সে।

স্বীকারোক্তিতে আসামী বিশু খাড়িয়া জানান, আসামি বিশু খাড়িয়ার মেয়ে গঙ্গামনি কে নালুয়া চা বাগানের পশ্চিমটিলায় বিয়ে দেন। আসামীর মেয়ের পরপর দুইটা বাচ্চা মারা যায়। বিশু খাড়িয়া কবিরাজের কাছে নিয়ে গেলে, কবিরাজ বলে নিহত বিষু মুন্ডা তার মেয়ের উপর টুটকা (যাদু) করায় মেয়ের বাচ্চা গুলো মারা যায়। এই কথা শুনে আসামীর মাথা গরম হয়ে যায়। সে তাকে মারার জন্য বিভিন্ন ভাবে ওত পেতে থাকে।

গত ০২-০৩-২০২০ ইং সোম বার পাশের গ্রামের মুলু সাওতালের বাড়ীতে তার ছেলের বিয়েতে যায় তারা । সেখানে আরো লোকজনের সাথে আসামি ও তার বায়রা ললির ছেলে কালা ঝরা, বিশু মুন্ডা ও ছিল। বিয়ে বাড়ীতে খাওয়া দাওয়া ও গান বাজনা শেষে বুড়ু মুন্ডার বাড়ীতে সবাই হারিয়া (মদ) খায়।

বিয়ে বাড়ীতে গান গাওয়া নিয়ে আসামি আর বিষু মুন্ডার মধ্য কথা কাটাকাটি হয়।পরে রাত ১১.০০ টার দিকে হারিয়া (মদ) খাওয়া শেষে আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালা ঝরা নিহত বিশু কে নিয়া বট গাছের নিচে আসে। পরে পাশের খলা হতে বাশ আনিয়া প্রথমে কালা ঝরা নিহত বিষু মুন্ডার মাথায় দুটি আঘাত (বারি) করে। আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালার হাত থেকে বাশ নিয়া নিহত বিশু মুন্ডার মাথায় একটি (বারি) আঘাত করে।

বিশু মুন্ডা মাটিতে পড়ে গেলে বিশুর গলার মাফলার দিয়া আসামি ও কালা তার গলায় পেচিয়ে ফাঁস লাগায়।

পরে আসামি বিশু খাড়িয়া ও কালা বিশু মুন্ডার লাশ তার গলার মাফলারে ধরিয়া টানিয়া পাশের দুমদুমিয়া বিলের পাড়ে ফেলে দেয়।

পরে তারা বাড়ীতে চলে যায়।
উল্লেখ্য গত ৩ মার্চ সকালে নালুয়া চা বাগানের পিকনিক স্পট দুমদুমিয়াতে বিশু মুন্ডার লাশ পাওয়া যায়। পরে সার্কেল এএসপি নাজিম উদ্দিন, চুনারুঘাট থানার ওসি শেখ নাজমুল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
পরে ওসি তদন্ত চম্পক দাম ও মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই শহিদুল ইসলাম তদন্ত করে তিন দিনের মধ্য ঘটনার সাথে জড়িত আসামীদের গ্রেফতার করে ঘটনা স্বীকারোক্তি নেন।

নালুয়ার চা শ্রমিকের হত্যাকারী গ্রেফতার স্বীকারোক্তি জবানবন্দী দিলেন অাসামীরা